অনলাইন ব্যাংকিং কাকে বলে? 2024

Rate this post

অনলাইন ব্যাংকিং কাকে বলে?

ভূমিকা:

 

অনলাইন ব্যাংকিং কাকে বলে? আপনার ব্যাঙ্ক (বা একটি নতুন ব্যাংক) দিয়ে একটি অনলাইন গ্রাহক হিসাবে নিবন্ধন করে,

আপনি আপনার স্থানীয় শাখাগুলিতে আপনার ব্যাঙ্ক যেগুলি সর্বাধিক সর্বাধিক সাধারণ

পরিষেবায় অনলাইন প্রবেশাধিকার পাবেন।

 

 

অনলাইন মারফত ব্যাংকের সুবিধা গুলি বাড়িতে বসে বা ব্যাংকে না গিয়ে পাওয়া গেলে সেটিকে

অনলাইন ব্যাংকিং বলা হয়l

 

আরো দেখুন

 

 

 

 

অনলাইন ব্যাংকিং কি?

 

 

অনলাইন মারফত ব্যাংকের সুবিধা গুলি বাড়িতে বসে বা ব্যাংকে না গিয়ে পাওয়া গেলে সেটিকে

অনলাইন ব্যাংকিং বলা হয়l

এবং যে সমস্ত ব্যক্তি বাড়ি থেকে ব্যাংক অনেক দূরে তারা সর্বদা ব্যাংকে যেতে পারে না। এইজন্য

সেই সমস্ত ব্যাক্তি, অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন সুবিধা বাড়িতে বসে পেতে পারেন।

আজকাল প্রায় প্রত্যেকটি ব্যাংকই তার কাস্টমারদের জন্য অনলাইন ব্যাঙ্কিং বা নেট ব্যাংকিং

এর সুবিধা প্রদান করে থাকে।

 

 

 

অনলাইন ব্যাংকিং এর অপর নাম কি?

 

  • নেট ব্যাংকিং
  • ইন্টারনেট ব্যাংকিং
  • ওয়েব ব্যাংকিং
  • ভার্চুয়াল ব্যাংকিং
  • মোবাইল ব্যাংকিং

 

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর সুবিধা:

 

 

  1. অনলাইনের মাধ্যমে মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন
  2. বিদ্যুৎ বিল এবং গ্যাস বিল পরিশোধ করতে পারবেন
  3. ব্যাংকে না গিয়ে অন্য ব্যক্তিদের টাকা পাঠাতে এবং টাকা নিতে পারবেন।
  4. অনলাইনের মাধ্যমে আপনার ব্যাংক ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন।
  5. অনলাইন মারফত বিভিন্ন জিনিস কেনাকাটা করতে পারবেন।
  6. অনলাইনের মাধ্যমে নতুন চেকবুক, পাসবুক এবং ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
  7. অনলাইন পাসবুক এর মাধ্যমে ট্রানস্যাকশন হিস্টরি দেখতে পারবেন।
  8. ইত্যাদি আরো অনেক সুবিধা পেয়ে যাবেন।

 

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর অসুবিধা:

 

যে সকল ব্যক্তি ইন্টারনেট সম্পর্কে বেশি কিছু জানেন না তাদের জন্য ইন্টারনেট ব্যাংকিং

অসুবিধাজনক হতে পারে।

যেমন –

আগেকার দিনের বৃদ্ধ মানুষ ইন্টারনেট সম্পর্কে বেশি কিছু জানেনা। তাই সেই সেই সকল ব্যক্তি

ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর ব্যবহার করতে পারবে না।এছাড়াও ভুল ইনফরমেশন দিলে আপনার

ব্যাংক থেকে টাকা, অপরিচিত ব্যক্তির ব্যাংকে চলে

যেতে পারে।

 

কিভাবে নেট ব্যাংকিং শুরু করবেন?

 

 

এরপর নেট ব্যাংকিং শুরু করার জন্য একটি ফর্ম দেওয়া হবে। আপনি সেই ফরমটি সঠিকভাবে

পূরণ করার পর ব্যাংকে জমা দিয়ে দিন।

 

 

ফর্মটা জমা দেওয়ার কিছুক্ষণ বা কয়েক দিন পর, ব্যাংক থেকে আপনাকে একটি ইউজার

আইডি এবং পাসওয়ার্ড দেবে। আপনি নির্দিষ্ট ব্যাংকের ওয়েবসাইটে গিয়ে সেই ইউজার আইডি

এবং পাসওয়ার্ড এর মাধ্যমে লগইন করে, ইন্টারনেট ব্যাংকিং করার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে

পারবেন।

 

অনলাইনে ব্যাংকিংয়ের লেনদেনের ক্ষেত্রে যা মনে রাখবেন ?

প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার আপনার অনলাইন ব্যাংকিংয়ের একাউন্টের পাসওয়ার্ড পরিবর্তন

করবেন।

আপনি যে কম্পিউটার বা স্মার্টফোন ব্যবহার করছেন সেটি চেক করে দেখবেন কোন ধরনের

ভাইরাস আছে কিনা ভাইরাস মুক্ত হওয়ার জন্য আপনি ভালো একটি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার

ইন্সটল করে রাখবেন আপনার ডিভাইসটি নিরাপত্তার জন্য।

 

অনলাইন ব্যাংকিং করার সময় কোন কোন জিনিস মাথায় রাখবেন:

 

  1. কখনোই সাইবার কাফে এর মত জায়গায় গিয়ে ইন্টারনেট ব্যাংকিং করবেন না
  2. অন্য কোনো ব্যক্তির সাথে ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর পাসওয়ার্ড শেয়ার করবেন না
  3. যে ডিভাইসে ইন্টারনেট ব্যাংকিং ব্যবহার করেছেন সেই ডিভাইসে ভালো একটি অ্যান্টি ভাইরাস সফটওয়্যার ইন্সটল করে রাখুনl

 

যেভাবে ইন্টারনেট ব্যাংকিং শুরু করবেন ?

 

 

আপনার যদি কোন ব্যাংকের একাউন্ট না থাকে তাহলে আপনার প্রথমে একাউন্ট খুলতে হবে।

অনলাইন ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য আপনাকে ব্যাংকের শাখা হতে একটি অনলাইন

কার্যক্রমের ফরম সংগ্রহ করতে হবে এই ফরমটি সঠিকভাবে পূরণ করে ব্যাংকের শাখায় জমা

দিতে হবে।

ফরমটি সঠিকভাবে পূরণ করে জমা দেওয়ার প্রায় এক সপ্তাহ পর ব্যাংক হইতে আপনাকে

একটি পাসওয়ার্ড ইউজার আইডি প্রদান করবে এই পাসওয়ার্ড এবং ইউজার আইডি মাধ্যমে

অনলাইন ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনলাইন ব্যাংকিং এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে

হবে।

ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে আপনি যখন অনলাইন ব্যাংকিং এর ওয়েবসাইটে

প্রবেশ করবেন সেখান থেকে আপনাকে কিছু প্রশ্ন করা হবে আপনি প্রশ্নগুলোর সঠিক ভাবে

উত্তর দিবেন এরপর আপনার অনলাইন ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু হবে।

 

 

পরিশেষে:

 

আমার দীর্ঘ বিশ্বাস আমাদের আর্টিকেলটি সম্পন্ন ভালোভাবে পড়লে আপনারা অনলাইন

ব্যাংকিং সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা পাবেন এবং আপনি অনলাইন ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা

করে সফল হবেন।

 

 

3 thoughts on “অনলাইন ব্যাংকিং কাকে বলে? 2024”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *