মার্কেটিং কি ?

Rate this post

ভূমিকা:

একটি প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট এবং পরিষেবা সম্পর্কে জনসাধারণকে শিক্ষিত এবং উত্তেজিত করার প্রক্রিয়া।  কনসিউমার প্রবণতায় একটি মার্কেটিং দলের প্রচেষ্টা ব্যবসার অন্যান্য দিকগুলির পিছনে কৌশল নির্দেশ করে এবং কোম্পানিগুলিকে ক্রমাগতভাবে কনসিউমারদের চাহিদা মেটাতে সাহায্য করে।

 একটি জীবন-পরিবর্তনকারী প্রোডাক্ট বিক্রি করে লাভ কী, যদি গ্রাহকরা এটি সম্পর্কে কখনও শোনেন না এবং এটি সম্পর্কে কিছু জানেন না? সেখানেই দক্ষ মার্কেটার কাজে আসে। মার্কেটারা কোম্পানিগুলিকে কনসিউমার এবং শিল্পের প্রবণতা শনাক্ত করতে, প্রচারাভিযান তৈরি করতে এবং তাদের প্রোডাক্ট গুলি কীভাবে অন্যদের থেকে উজ্জ্বল করে তা দেখিয়ে দর্শকদের মোহিত করতে সহায়তা করে।

 আরো পড়ুন

মার্কেটিং কি – মার্কেটিং বৃদ্ধির কৌশল কি:

সহজ কথায়, মার্কেটিং হল একটি ব্র্যান্ড এবং এর প্রোডাক্ট সম্পর্কে লোকেদের সচেতন এবং আগ্রহী করার কার্যকলাপ, প্রায়শই এর অফারগুলিকে প্রচার করে যাতে গ্রাহকরা সেগুলিকে মূল্যবান  পছন্দসই হিসাবে উপলব্ধি করে।

মার্কেটিং আমাদের চারপাশে। একটি হাইওয়ে বরাবর বিলবোর্ড, টিভিতে বিজ্ঞাপন, ম্যাগাজিনে বিজ্ঞাপন, সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্র্যান্ড পোস্ট এবং একটি ওয়েবসাইটে অপ্টিমাইজ করা বিষয়বস্তু মার্কেটিংয়ের দৈনন্দিন উদাহরণ।

মার্কেটিংয়ের সবচেয়ে বিখ্যাত উদাহরণগুলির মধ্যে একটি হল নাইকির স্লোগান “জাস্ট ডু ইট”। বিশ্বমানের ক্রীড়াবিদ মুখপাত্রের সাথে “জাস্ট ডু ইট” যুক্ত করা গত 30 বছরের সবচেয়ে কার্যকর মার্কেটিং প্রচারাভিযানের মধ্যে একটি হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে। শব্দগুচ্ছ প্রতিযোগিতামূলক ক্রীড়াবিদদের সাথে অনুরণিত হয় এবং নিজেকে আরও ভাল ক্রীড়াবিদ হতে ঠেলে দেওয়ার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে l

প্রায়শই ব্যবসার অন্যান্য দিকগুলিকে অবহিত করতে সহায়তা করে। প্রোডাক্ট, বিক্রয় এবং বিজ্ঞাপন দল সবই একটি মার্কেটিং দলের প্রচেষ্টা দ্বারা প্রভাবিত হয়। মার্কেটারা মূল্যবান অন্তর্দৃষ্টি সহ এই দলগুলির সিদ্ধান্তগুলি পরিচালনা করার জন্য দায়ী,  তারা বাজার গবেষণার আকারে ডেটা সংকলন করে।

কোম্পানির বর্তমান পণ্যের প্রতি তাদের সখ্যতা এবং অন্যান্য প্রতিযোগীরা কী করছে সে সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে। একটি মার্কেটিং দলের গভীর বাজার গবেষণা প্রোডাক্ট এবং প্রকৌশল দলগুলিকে কী তৈরি করতে হবে, বিক্রয় দলগুলিকে কী বিক্রি করতে হবে এবং বিজ্ঞাপন দলগুলিকে কী যোগাযোগ করতে হবে সে সম্পর্কে অবহিত করে।

মার্কেটিং কি ?
মার্কেটিং কি ?

মার্কেটিং কেন গুরুত্বপূর্ণ?

 

মার্কেটিং ব্যবসায়িক সাফল্যের একটি মূল উপাদান এটি একটি কোম্পানির গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর, একটি ব্র্যান্ড বিকাশ এবং রাজস্ব তৈরি করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।

লাইফলাইন হিসাবে কাজ করে যা ব্র্যান্ডগুলিকে সম্ভাব্য গ্রাহকদের সাথে সংযুক্ত করে। বাজার গবেষণা দলগুলিকে তাদের লক্ষ্য শ্রোতা কারা তা নির্ধারণ করতে সক্ষম করে এবং সেই অনুযায়ী তাদের মেসেজিং এবং যোগাযোগগুলি তৈরি করে৷ ব্যবসাগুলি তখন গ্রাহকদের মধ্যে ইতিবাচক ধারণা তৈরি করতে পারে যারা তাদের পণ্যগুলির মূল্য খুঁজে পেতে এবং কেনার সম্ভাবনা বেশি।

একটি সুপরিকল্পিত মার্কেটিং কৌশল একটি কোম্পানির ব্র্যান্ড এবং মেসেজিংকে দৃঢ় করে। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ  সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্র্যান্ডিং গ্রাহকদের একটি কোম্পানি থেকে কী আশা করতে হবে তা বলে এবং একটি খ্যাতির দিকে নিয়ে যায়।  একটি ব্যবসা এই প্রত্যাশাগুলি পূরণ করতে এবং তার খ্যাতি অনুসারে চলতে পারে  এটি বিশ্বস্ত গ্রাহকদের মধ্যে আস্থা তৈরি করতে পারে এবং ভোক্তাদের চোখে তার ব্র্যান্ডের মূল্য যোগ করতে পারে।

সবচেয়ে কার্যকর ব্র্যান্ড জয় ও সাফল্যের সমার্থক হয়ে উঠেছে। গ্রাহক একা Nike ব্র্যান্ডের সুনামের উপর ভিত্তি করে একটি বেনামী ব্র্যান্ডের জুতার চেয়ে একটি Nike জুতার জন্য বেশি অর্থ প্রদান করবে। একটি আদর্শ ব্র্যান্ড হাইলাইট করে যা একটি কোম্পানিকে অনন্য করে তোলে, এটিকে প্রতিযোগীদের থেকে আলাদা করে এবং গ্রাহকদের মধ্যে তার পণ্যগুলিকে লোভনীয় আইটেমে রূপান্তর করে।

মার্কেটিং এর জনক কে:

মার্কেটিং শব্দটি  ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরণের পণ্য এবং সেবা বিক্রয়ের জন্য প্রযোজনীয় প্রক্রিয়াগুলির সংজ্ঞায়িত করে।  যে কোনও পণ্য বা সেবা বিক্রয়ের প্রক্রিয়া পরিচালনার সম্পর্কে ধারণা প্রদান করে, যা ব্যবসায়ের উদ্দেশ্যে মূলত অবলম্বন করা হয়।

মার্কেটিং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ফিলিপ কোটলার কে মার্কেটিংয়ের জনক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। ১৯৬০ এর দশকে, তিনি ব্যাক্তিগত কর্মকাণ্ড এবং সংস্থাগুলির বিপ্লবের পাশাপাশি ব্যবসায়িক গবেষণা এবং ব্যবসায়ের প্রচেষ্টা ও ব্যবহার যুগের শুরুতে মার্কেটিং কনসেপ্ট উপস্থাপন করেন। তাঁর কাজ ও গবেষণা দেখে আধুনিক মার্কেটিং ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে।

তাঁর পরিচিত বই ‘মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট: এক ব্যবসায়িক গবেষণার মডেল’ (Marketing Management: Analysis, Planning, and Control) হল একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ। তার বইটি ব্যবসায়ের মাধ্যমে মার্কেটিং প্রচেষ্টাগুলির পরিকল্পনা এবং নিয়ন্ত্রণ নিয়ে চর্চা করে।

 

মার্কেটিং কত প্রকার:

 

নিম্নলিখিত কিছু প্রধান মার্কেটিং প্রকার রয়েছl

আরো পড়ুন

  1. ডিজিটাল মার্কেটিং: এটি ইন্টারনেট এবং ইলেকট্রনিক প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে পণ্য বা সেবা প্রচার করার পদ্ধতি। ডিজিটাল মার্কেটিং ইন্টারনেট বিজ্ঞাপন, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, ইমেল মার্কেটিং, ওয়েবসাইট মার্কেটিং এবং অন্যান্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে প্রচার করা হয়।
  2. স্থানিক মার্কেটিং:  বিশেষত প্রচার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি নিকটস্থ পার্শ্ববর্তী ব্যবসা, এলাকা বা অঞ্চলের ব্যবসা এবং ব্যবসায়ের উপর ভিত্তি করে বিশেষ পদ্ধতিতে কাজ করে।
  3. সামাজিক মার্কেটিং: এটি সমাজের উন্নয়ন ও সমাজ উপকারের উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়। এটি সামাজিক বিষয়, পরিবর্তন, জনগণের উন্নয়ন এবং সমাজের সমস্যার সমাধানে মার্কেটিং কৌশল ব্যবহার করে।
  4. নিদিষ্ট মার্কেটিং: এটি নির্দিষ্ট গ্রুপ বা পরিবেশের জন্য বিশেষভাবে পরিকল্পিত মার্কেটিং কার্যক্রম ব্যবহার করে। এটি নিশ্চিত সম্প্রদায়, ব্যবসা, বা পণ্যের গ্রুপের জন্য পণ্য প্রচার করার উপযোগী।
  5. মনোবিজ্ঞানিক মার্কেটিং: এটি গ্রাহকের মনোভাব এবং উদ্দেশ্য বোঝার উদ্দেশ্যে প্রযুক্তি, পদ্ধতি, এবং ব্যবসায়ের উপর ভিত্তি করে মার্কেটিং করা হয়।
  6. নেটওয়ার্ক মার্কেটিং: এটি নেটওয়ার্ক প্রচার এবং বিক্রয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়, যেখানে গ্রাহকের সম্পর্ক ও সাম্প্রদায়ের মাধ্যমে মার্কেটিং কাজ করে।

 

মার্কেটিং এর বৈশিষ্ট্য:

 

মার্কেটিং একটি ব্যবসায়িক প্রক্রিয়া যা পণ্য, পরিষেবা, বা আইডিয়ার বিপণন এবং বিক্রয়ের জন্য প্রযুক্তি, পরিকল্পনা, এবং পরিচিতির ব্যবস্থা করে। মার্কেটিং কার্যক্রমে প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট গ্রাহকদের আকর্ষণ করার জন্য বিভিন্ন উপায় ব্যবহার করে।

মার্কেটিং এর বৈশিষ্ট্য হলো:

মার্কেটিং কি ?
  1. গ্রাহকের মধ্যে বাজার চিন্তা:মার্কেটিং প্রক্রিয়া গ্রাহকের চিন্তা, পছন্দ, প্রয়োজন এবং আগ্রহ বুঝতে ভিত্তি করে হয়। গ্রাহকের চিন্তা এবং প্রত্যাশা মার্কেটিং ক্যাম্পেইন ডিজাইন করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
  2. মার্কেটিং ও মার্কেটিং মূল্য:মার্কেটিং একটি প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বাজারে মার্কেটিং এবং মার্কেটিং মূল্য প্রদান করার মাধ্যমে আকর্ষণ উৎপন্ন করে। সঠিক মূল্য নির্ধারণ মার্কেটিং প্রক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক।
  3. বৈশিষ্ট্যমূলক প্রস্তাবনা:প্রোডাক্ট বা পরিষেবার বৈশিষ্ট্যমূলক প্রস্তাবনা একটি ব্র্যান্ড আকর্ষণীয় করে। আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার উন্নতিতে বিশেষজ্ঞতা দেখানো হলে গ্রাহকদের প্রতি আপনার মৌলিক বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করতে পারেন।
  4. টার্গেটিং এবং পজিশনিং:টার্গেটিং মার্কেটিং একটি নির্দিষ্ট গ্রাহক সমূহকে লক্ষ্য করে প্রোডাক্ট বা পরিষেবা প্রদান করার প্রক্রিয়া হলো। পজিশনিং মার্কেটিং প্রোডাক্ট বা পরিষেবাকে মান, মূল্য এবং বৈশিষ্ট্য দ্বারা আকর্ষণীয় করার প্রক্রিয়া।
  5. সোশ্যাল মিডিয়া এবং ডিজিটাল মার্কেটিং:সোশ্যাল মিডিয়া এবং ডিজিটাল মার্কেটিং প্রক্রিয়াকে নতুন উচ্চারণ দেয়। এই প্ল্যাটফর্মগুলির মাধ্যমে প্রোডাক্ট বা পরিষেবা প্রচার এবং গ্রাহকের সাথে সম্পর্ক তৈরি করা যায়।
  6. স্বতন্ত্র ব্র্যান্ডিং:একটি প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট যদি একটি স্বতন্ত্র ব্র্যান্ড তৈরি করতে পারে, তবে তার মার্কেট প্রেসেন্স আরও বৃদ্ধি পায়। এটি প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্টের সাথে গ্রাহকের মধ্যে বিশ্বাস এবং নির্ভরশীলতা তৈরি করে।
  7. ক্রিয়েটিভিটি এবং ইনোভেশন:মার্কেটিং প্রক্রিয়া সমৃদ্ধ হলে, ক্রিয়েটিভিটি এবং ইনোভেশন প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য নতুন এবং আকর্ষণীয় আইডিয়া বা পদক্ষেপ প্রদান করতে পারে।

 

মার্কেটিং কাজ কি:

 

পরিষেবা বা আইডিয়ার মার্কেটিং এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করার জন্য প্রযুক্তি, পরিকল্পনা এবং পরিচিতির ব্যবস্থা। মার্কেটিং একটি প্রতিষ্ঠান বা ব্র্যান্ড এর উৎসাহী গ্রাহকদের আকর্ষণ করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়। এই কারণে মার্কেটিং হলো প্রস্তুতি, পরিকল্পনা, মার্কেটিং এবং মার্কেটার দের জন্য পরিকল্পিত পদক্ষেপের সমষ্টি।

প্রোডাক্ট এর মান, মানদণ্ড, এবং মূল্য নির্ধারণ করা এবং তা প্রস্তুত করার জন্য উপযুক্ত মাধ্যম বা পদক্ষেপ নেওয়া। এটি গ্রাহকদের আগ্রহ প্রদান করার জন্য প্রয়োজনীয় সব প্রকারের পরিচিতি, বিশ্বাস এবং সন্দেহভরা সান্ত্বনা সৃষ্টি করার জন্য ব্যবহার করা হয়।

মার্কেটিং কাজের মধ্যে প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রচুর মাত্রায় জনগণের মধ্যে পণ্য বা পরিষেবা প্রচার করার চেষ্টা করা হয়। এটি মার্কেটিং পরিচালনা,গ্রাহকের চিন্তামুলক আকর্ষণ এবং প্রমুখভাবে মার্কেটিং এবং বিক্রয় এর জন্য প্রযুক্তি প্রয়োগ করার জন্য ব্যবহৃত হয়।

উপকারিতা রয়েছে, যেমন বাজারের আকর্ষণ, প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট এর পণ্য বা পরিষেবার পরিচিতি বা প্রচার বাড়ানো, প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট এর মান ও মানদণ্ড বাড়ানো, কাস্টমার সন্তুষ্টি বা লইয়াল্টি বাড়ানো, প্রদানের পরিচিতি ও প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট এর স্বতন্ত্রতা বাড়ানো, মার্কেটিং মিশন এবং উদ্দেশ্য সাধন করা, বাজারের প্রশ্ন বা চোখে পড়ানো, কাস্টমার সম্পর্ক পরিচালনা, মার্কেটিং সংগঠন পরিচালনা, প্রমোশন পরিচালনা, মার্কেটিং মিশন পরিচালনা ইত্যাদি।

মার্কেটিং হলো প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট এর পরিচিতি বা প্রচার বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া এবং গ্রাহকের আকর্ষণ করা। এটি ব্যবসায়িক সফলতা প্রাপ্ত করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রক্রিয়া।

মার্কেটিং এ সফল হওয়ার উপায়

মার্কেটিং এ সফল হওয়ার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপায় নিম্নে উল্লেখ করা হলো:

  1. গ্রাহকের চিন্তা জানা: গ্রাহকদের চিন্তা জানা এবং তাদের প্রতি কি ধরণের প্রকার আগ্রহ প্রদান করে। গ্রাহকের চিন্তা, প্রয়োজন এবং পছন্দ ভেতর রেখে পণ্য বা পরিষেবা তৈরি করুন।
  2. ভিন্নতা এবং নোভেলটি পরিষেবার মাধ্যমে ভিন্নতা এবং নোভেলটি যোগ দিন। আপনার প্রোডাক্ট বা সেবা আপনার প্রতিষ্ঠানকে অন্যতম আলাদা করে তোলার জন্য কোনো আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্য আছে তা জানা গুরুত্বপূর্ণ।
  3. সঠিক লক্ষ্য এবং লক্ষ্যে পৌঁছাতে পরিচিতি:আপনার মার্কেটিং লক্ষ্যগুলি স্পষ্ট এবং মেটাবল করুন। প্রতিটি লক্ষ্য যাচাই করতে পরিস্থিতির জন্য পরিচিতি অর্জন করুন এবং প্রয়োজনে লক্ষ্যগুলি পরিবর্তন করুন।
  4. প্রচুর পরিচিতি এবং প্রচার:আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা পরিচিতি বাড়াতে এবং বিশ্বাস জোগাতে প্রচুর পরিচিতি এবং প্রচার করুন। ইন্টারনেট এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে আপনার প্রতিষ্ঠান এবং প্রোডাক্ট সামাজিক মাধ্যমে জনগণের প্রতি প্রচার করুন।
  5. গ্রাহক সন্তুষ্টি বাড়া:আপনার গ্রাহকদের সন্তুষ্ট রাখার জন্য প্রয়াস করুন। গ্রাহকের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সেবার মাধ্যমে তাদের সন্তুষ্ট রাখার চেষ্টা করুন। গ্রাহকের মতামত এবং প্রতিস্থানের ব্র্যান্ড ইমেজ সংক্ষেপে জানা এবং তাদের প্রতি সাদর থাকার জন্য কাজ করুন।
  6. প্রমোশন এবং বিপণন পরিচালনা:আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার প্রচার করার জন্য সঠিক প্রমোশন পদক্ষেপ নিন। মার্কেটিং প্রক্রিয়া ভালভাবে পরিচালনা করুন এবং কাস্টমারদের জন্য আকর্ষণীয় অফার এবং ডিসকাউন্ট প্রদান করুন।
  7. প্রস্তাবনা এবং প্রস্তাবিত মূল্য সার্বজনিক করা: আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য সঠিক মূল্য নির্ধারণ করুন। প্রস্তাবিত মূল্য যদি গ্রাহকদের সাথে মেল খায় তবে তা আপনার মার্কেটিং বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।
  8. প্রমুখভাবে গ্রাহকের সংবাদ শোনা:গ্রাহকদের মতামত এবং প্রতিক্রিয়া গুনগুন শোনার চেষ্টা করুন। এটি আপনাকে আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার উন্নতি করতে সাহায্য করতে পারে এবং কাস্টমারের প্রতি আপনার প্রেম এবং সম্মান প্রদান করতে পারে।

মার্কেটিং বৃদ্ধির কৌশল শেখার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রস্তাবনা নিম্নে দেওয়া হলো:

  1. গ্রাহকের মধ্যে বাজার চিন্তা: গ্রাহকদের চিন্তা এবং প্রত্যাশা বুঝতে অধ্যয়ন করুন। তাদের প্রয়োজন এবং পছন্দ নির্ধারণ করুন এবং এই তথ্যটি আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য বিকাশ করার জন্য ব্যবহার করুন।
  2. কোম্পিটিটিভ বিশ্লেষণ: আপনার প্রতিষ্ঠানের সাপেক্ষ কোম্পিটিটরদের প্রচুর বিশ্লেষণ করুন। তাদের কৌশল, প্রোডাক্ট, মার্কেটিং প্রক্রিয়া, এবং গ্রাহক সান্ত্বনা পরিচিতি করুন।
  3. ইনোভেটিভ এবং ক্রিয়েটিভিটি: নতুন আইডিয়া তৈরি করুন এবং আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য নতুন পদক্ষেপ নিন। ইনোভেটিভ হওয়া এবং ক্রিয়েটিভ হওয়া মার্কেটিং বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
  4. সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার:সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য প্রচার করুন এবং গ্রাহক সম্পর্ক তৈরি করুন। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সাধারণভাবে খরচ কম এবং প্রভাবশালী।
  5. গ্রাহকের সন্তুষ্টি বাড়া:গ্রাহকের সন্তুষ্টি বাড়ার জন্য প্রয়োজনে প্রোডাক্ট বা পরিষেবা সংক্ষেপে উন্নত করুন। গ্রাহকের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সম্মান প্রদান করতে পারে গ্রাহকের সন্তুষ্টি বাড়ার জন্য কৌশলের মাধ্যমে গ্রাহকদের আত্মবিশ্বাস জোগানো।
  6. পর্যাপ্ত মার্কেটিং সংশ্লিষ্টতা:প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য পর্যাপ্ত মার্কেটিং সংশ্লিষ্টতা তৈরি করুন। সঠিক সময়ে সঠিক পাবলিসিটি পাওয়া যেতে পারে এবং আপনার প্রোডাক্ট বা
  7. পরিষেবা মার্কেটে ঠিক সময়ে পৌঁছাতে পারে।
  8. প্রমুখ গ্রাহক সংযোগ:গ্রাহকের সংযোগ বিশ্লেষণ করে তাদের প্রতি আপনার প্রেম এবং
  9. সম্মান প্রদান করুন। গ্রাহকের প্রতি সম্মান এবং নিজের ব্র্যান্ড নির্মাণ করার জন্য এই সংযোগটি গুরুত্বপূর্ণ।

এই কৌশলগুলি মিলিয়ে একটি শক্তিশালী মার্কেটিং প্রস্তাবনা তৈরি করা যায়, যা আপনার

প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্টের বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। মার্কেটিং প্রক্রিয়াটি প্রতিষ্ঠানের মানদণ্ড,

গুণ, আদর্শ, এবং সংগঠনের লক্ষ্যের সাথে মিলে গ্রাহকের সন্তুষ্টি প্রাপ্ত করার জন্য উপযুক্ত হতে

পারে।

মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট:

মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট হলো প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বাজারে প্রদান করার জন্য পরিকল্পনা,

বিনিয়োগ, এবং নির্ধারিত লক্ষ্যের সাথে গ্রাহকের চিন্তা এবং মার্কেটিং প্রক্রিয়ার পরিচিতি করার

মাধ্যমে সম্পাদিত হয়। এটি মার্কেটিং পর্যালোচনা করে এবং প্রোডাক্ট বা পরিষেবার প্রমুখ লাভ

হতে পারে যা গ্রাহকদের সাথে মিলে।

মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টের প্রক্রিয়া:

  1. গ্রাহকের চিন্তা এবং প্রত্যাশা:মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টের শুরুতে গ্রাহকের চিন্তা এবং প্রত্যাশা বুঝতে হবে। গ্রাহকের প্রতি মানবতা এবং সম্মান দেখানো গুরুত্বপূর্ণ।
  2. বাজার পর্যালোচনা: প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টের জন্য বাজারের অনুসন্ধান করা গুরুত্বপূর্ণ। কোন বাজারে আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা জনপ্রিয় হতে পারে তা নির্ধারণ করার জন্য বাজারের প্রয়োজন।
  3. পণ্য বা পরিষেবার বিকাশ:আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বাজারে উন্নত করতে হলে প্রপোসাল, গুণ, মূল্য, এবং সম্পর্কে বিশেষজ্ঞতা প্রদান করা গুরুত্বপূর্ণ।
  4. মার্কেটিং প্রপোসাল এবং প্রচার:আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা প্রস্তুত করতে হলে সঠিক মার্কেটিং প্রপোসাল এবং প্রচার করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি গ্রাহকদের কাছে আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা নিয়ে একটি আকর্ষণ তৈরি করে তোলা সাহায্য করে।
  5. মার্কেটিং মূল্য:মার্কেটিং প্রক্রিয়া বা প্রোডাক্ট বা পরিষেবা কিভাবে বাজারে উপস্থাপন করা হয় তা নির্ধারণ করাও গুরুত্বপূর্ণ। মূল্য সঠিক ভাবে নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  6. সংপর্ক প্রস্থাপনা:গ্রাহকের সম্পর্ক প্রস্থাপনা, তাদের প্রতি যত্ন এবং সম্মান প্রদান, এবং তাদের সাথে সম্পর্ক উদ্দীপন করার মাধ্যমে মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট চালানো যায়।
  7. পর্যাপ্ত মার্কেটিং সংশ্লিষ্টতা:প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য পর্যাপ্ত মার্কেটিং সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ যা মূল্যবান সময়ে প্রচার করতে পারে এবং আপনার প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বেশি গ্রাহকদের দ্বারা পৌঁছাতে পারে।

এই প্রক্রিয়াগুলি মিলিয়ে একটি জনপ্রিয় এবং বাজারে জনপ্রিয় হওয়ার জন্য মার্কেটিং

ম্যানেজমেন্ট পরিচালনা করা যায়। এই প্রক্রিয়াটি প্রতিষ্ঠানের মানদণ্ড, গুণ, আদর্শ, এবং

সংগঠনের লক্ষ্যের সাথে মিলে গ্রাহকদের সন্তুষ্টি প্রাপ্ত করার জন্য উপযুক্ত হতে পারে।

মার্কেটিং পলিসি:

 

মার্কেটিং পলিসি হলো একটি প্রতিষ্ঠান বা প্রোডাক্ট নির্ধারণ করতে সাহায্য করার জন্য

প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং করণীয় এবং উদ্দেশ্যের সাথে মিল রাখা। এটি একটি প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং

প্রক্রিয়া এবং প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বা পরিষেবার উদ্দেশ্যের দিকে নির্দেশনা প্রদান করে। এটি

মার্কেটিং প্রক্রিয়ার সাথে মিল রাখার জন্য একটি নির্দিষ্ট নীতি ও গাইডলাইন প্রদান করে।

মার্কেটিং পলিসি তৈরির ধাপসমূহ:

  1. লক্ষ্য ও লক্ষ্যমূলকতা:মার্কেটিং পলিসি তৈরির প্রথম ধাপ হলো প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য এবং লক্ষ্যমূলকতা নির্ধারণ করা। কোন লক্ষ্যের প্রয়োজন, কোন মূল্যবান আদর্শ, এবং কোন বাজার ভালো করা দরকার তা নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  2. টার্গেট মার্কেট:কোন প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য প্রধান লক্ষ্য গ্রাহকের সমূহ হলো টার্গেট মার্কেট। মার্কেটিং পলিসি তৈরির সময়ে এই লক্ষ্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে যাতে সঠিক উপাদানগুলি লক্ষ্য করা যায়।
  3. প্রকাশ এবং মার্কেটিং:কীভাবে প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বাজারে প্রদান করা হবে তা নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ। প্রকাশের মাধ্যমে এবং মার্কেটিংয়ের উপাদানগুলি যে ভাবে ব্যবহৃত হবে তা নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  4. মূল্য নির্ধারণ:প্রোডাক্ট বা পরিষেবার জন্য কোন মূল্য নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি কাস্টমারদের সাথে মিল রাখা এবং প্রতিস্থানের মানদণ্ডের সাথে মিল খাওয়া উদ্দেশ্যে হতে পারে।
  5. প্রচার ও প্রস্তাবনা:কীভাবে প্রোডাক্ট বা পরিষেবা প্রচারিত হবে এবং কোন প্রচার পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে তা নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড মান এবং মার্কেটিং প্রক্রিয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
  6. গ্রাহক সম্পর্ক:গ্রাহকদের সাথে সম্পর্ক উদ্দীপন এবং তাদের সাথে যত্ন নেওয়া মার্কেটিং পলিসির একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। গ্রাহক সন্তুষ্টি এবং বিশ্বাস প্রাপ্ত করার জন্য এই পদক্ষেপটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
  7. পরিস্থিতি বিশ্লেষণ:মার্কেটিং পলিসি তৈরির শেষ ধাপ হলো পরিস্থিতি এবং পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করা। বাজারের পরিস্থিতি এবং প্রতিস্থানের প্রকারের প্রতিক্রিয়া নিরীক্ষণ করে
  8. প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে যে কোন প্রয়োজনীয় পরিবর্তন বা পরিষ্কার প্রদান করার জন্য এই
  9. পদক্ষেপ গুরুত্বপূর্ণ।

 

উপসংহার:

 

মার্কেটিং পলিসি প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বা পরিষেবা বাজারে সঠিকভাবে প্রদান করার জন্য একটি

প্রাথমিক গাইডলাইন প্রদান করে এবং প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য এবং লক্ষ্যমূলকতা নির্ধারণ করার জন্য

সাহায্য করে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *