ওয়ার্ডপ্রেস কি? ওয়ার্ডপ্রেস কেন এত জনপ্রিয়?

Rate this post

ভূমিকাঃ
এ সম্পর্কে বিস্তারিত এখন আলোচনা করব চলুন তাহলে আলোচনা করা যাকl

ইন্টারনেট ব্যবহারকারী হিসেবে আপনি হয়ত ইতোমধ্যেই ওয়ার্ডপ্রেস শব্দটি শুনে থাকবেন।

তবুও আপনি হয়ত বহুবার ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা চালিত সাইট ভিজিট করেছেন-  ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে একটি কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম  দিয়ে ওয়েবসাইট নির্মাণ ও পরিচালনা করা হয়।

চলুন জেনে নেয়া যাক, ওয়ার্ডপ্রেস কি, এর ইতিহাস ও ওয়ার্ডপ্রেস কেন এত জনপ্রিয়, ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত। এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা দেখানো হলো:

ওয়ার্ডপ্রেস কি? :

ওয়ার্ডপ্রেস হলো ওয়েবসাইট ও ব্লগ তৈরীর সবচেয়ে সহজ ও বহুল জনপ্রিয় মাধ্যম।

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেন-সোর্স সিএমএস বা কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, যা পিএইচপি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে। এজন্য এটার জন্য প্রিয়l

ওয়ার্ডপ্রেস GPLv2 এর অধীনে লাইসেন্স করা ওপেন-সোর্স সফটওয়্যার হওয়ার ফলে যেকেউ ওয়ার্ডপ্রেস বিনামূল্যে ব্যবহার ও মোডিফাই করতে পারে।

বর্তমানে বিশ্বের সকল ওয়েবসাইটের প্রায় ৪০ শতাংশ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে তৈরী! এছাড়াও আপনি এখান থেকে অনেক কিছু জানতে পারেনl

ওয়েবসাইট তৈরীর কাজকে ওয়ার্ডপ্রেস সহজ করে দিয়েছে। তাই এখন অনেকটাই সহজl ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে যেকেউ খুব সহজেই একটি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারবে। ওয়ার্ডপ্রেস কি? ওয়ার্ডপ্রেস কেন এত জনপ্রিয়?

এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরীতে কোনো প্রকার কোডিং সম্পর্কে জ্ঞান না থাকলেও চলে। এ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান থাকতে হবেl

 

WordPress.com নাকি WordPress.org?

 

গুগলে WordPress লিখে সার্চ করলে দুইটি ওয়েবসাইট শীর্ষস্থানে দেখতে পাবেন। এর মধ্যে একটি হলো WordPress.com ও অন্যটি WordPress.org সাইট।

মজার ব্যাপার হলো, দুইটি ওয়েবসাইটের নামই WordPress হলেও কার্যক্রমের দিক দিয়ে এই দুইটি ওয়েবসাইটের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। চলুন সেই পার্থক্য সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

এ সম্পর্কে থেকে আমরা ধারণা নেব দুটো থেকে একটি যেকোন বেছে নিয়ে আমরা কাজ করবl

 

 

WordPress.org নিয়ে। এটি হলো ওয়েবসাইটের জন্য একটি ফ্রি ও ওপেন-সোর্স কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম।

অর্থাৎ ওয়ার্ডপ্রেস একটি সফটওয়্যার যা ব্যবহার করে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ওয়েবসাইট তৈরী করা যাবে। WordPress.org থেকে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে নিজের হোস্ট করা যেকোনো ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারবেন।

সেক্ষেত্রে আপনি একটি হোস্টিং সার্ভিস যেমন হোস্টগেটর, Bluehost, DijitalOcean, Vultr, Cloudways প্রভৃতি ব্যবহার করতে পারেন।

যাহোক আপনি যেকোন  ভাবেই দুটো থেকে একটি আপনার দুইটা সুবিধা সেটাতে কাজ করবেনl

অন্যদিকে WordPress.com হলো মূলত একটি ওয়েব হোস্টিং কোম্পানি,  WordPress.org এর সফটওয়্যার ব্যবহার করে টাকার বিনিময়ে ওয়েব হোস্টিং সেবা এবং ওয়েবসাইট তৈরীর সুবিধা দিয়ে থাকে।

তবে WordPress.org এর আসল সফটওয়্যার সরাসরি প্রচলিতভাবে ব্যবহার না করায় WordPress.com এ কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে।

এটা যেভাবে করতে হয় সেভাবে আপনারা কাজ করবেন কাজ করে নিবেন

এই আর্টিকেলে আমরা ওয়েবসাইটের জন্য কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ওয়ার্ডপ্রেস WordPress.org এ যেটা পাওয়া যায় সেটা নিয়ে জানবো।

ওয়ার্ডপ্রেস এর ইতিহাস:

২০০২ সালে ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য b2/cafelog ব্লগিং সিস্টেম ইন্সটল করেছিলেন। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এই ব্লগিং সিস্টেম এর প্রধান ডেভলপার কিছু কারণে এই ব্লগিং সিস্টেম এর কাজ বন্ধ করে দেন।

২০০৩ সালের এপ্রিল মাসের ১ তারিখে নিজের এক বন্ধু, মাইক লিটলকে নিয়ে b2/cafelog এর একটি নতুন সংস্করণ তৈরী করেন ম্যাট মুলেনওয়েগ।

ম্যাট এর এক বন্ধু WordPress নামটির পরামর্শ দিলে নামটি তার পছন্দ হয় এবং সেই থেকেই জন্ম হয় ওয়ার্ডপ্রেস এর। এর ব্যবহার আমাদের কি জানতে হবেl

প্রথম সংস্করণ, ওয়ার্ডপ্রেস ০.৭ ২০০৩ সালের মে মাসের ২৭ তারিখ মুক্তি পায়। ওয়ার্ডপ্রেস ১.০ প্রকাশ করা হয় ২০০৪ সালের জানুয়ারী মাসে।

ওয়ার্ডপ্রেস এর এই সংস্করণ ‘Davis’ নামে পরিচিত। এরপর সময়ের সাথে সাথে ধীরে ধীরে ওয়ার্ডপ্রেসে যুক্ত হতে থাকে নতুন নতুন ফিচার ও বাড়তে থাকে ওয়েবসাইট তৈরীর সফটওয়্যার হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস এর জনপ্রিয়তা।

এজন্যেই এর জনতা নয় এমন নয় বরং এর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি মুলেনওয়েগ ও মাইক লিটল এর প্রচেষ্টার ফসল ওয়ার্ডপ্রেস।

যদিওবা ম্যাট মুলেনওয়েগ-ই ওয়ার্ডপ্রেস এর সহপ্রতিষ্ঠাতা হিসাবে সবার কাছে পরিচিত।

এছাড়াও ম্যাট মুলেনওয়েগ WordPress.com এর পেছনে থাকা প্রতিষ্ঠান, Automattic এর প্রতিষ্ঠাতা। আমরা জানলাম এ সম্পর্কেl

 

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট:

 যাত্রা একটি ব্লগ তৈরির সাধারণ টুল হিসাবে শুরু হলেও সময়ের সাথে সাথে বদলেছে ওয়ার্ডপ্রেস এর রুপ ও কার্যকারিতা।

বর্তমানে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট তৈরী করা সম্ভব।

এই ব্যাপারটি আরও সহজ হয়েছে ওয়ার্ডপ্রেস এর ডিরেক্টরিতে থাকা অসংখ্য থিম ও প্লাগিন এর সাহায্যে।

অনেক সাহায্যের মাধ্যমে আমরা কাজ করতে খুব সহজ অনুভূত প্রকাশ করি

উদাহরণস্বরূপ, ওয়ার্ডপ্রেস শুধুমাত্র বিজনেস ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগ তৈরীতেই নয়, বরং ই-কমার্স সাইট তৈরীরও অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে তৈরী করা সম্ভব এমন কিছু ধরনের সাইট নিম্নরূপঃ

  • বিজনেস ওয়েবসাইট
  • ব্লগ
  • পোর্টফোলিও
  • রেজ্যুমে
  • সোশ্যাল নেটওয়ার্ক
  • মেম্বারশিপ সাইট, ইত্যাদি।

ধরনের ওয়েবসাইট ছাড়াও একাধিক ক্যাটাগরি মিশিয়েও ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট বানানো যাবে৷

মোটামুটি ভাবা যায় এমন যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট ই ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা বানানো সম্ভব। এ সকল থেকে ওয়েবসাইট বানানো যাবেl চলেl

ওয়ার্ডপ্রেস এর ব্যবহারকারী কারা?

ওয়ার্ডপ্রেস এর ব্যবহার এতোটাই জনপ্রিয় যে এটা ছাড়া বিশ্বের ইন্টারনেট ব্যবস্থাকে কল্পনাই করা যায় না।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে এমন কিছু উল্লেখযোগ্য ওয়েবসাইট হলোঃ নিম্ন এই সম্পর্কে আপনাদের ধারণা দেওয়া হলো :

 

  • মাইক্রোসফট এর অফিশিয়াল ব্লগ
  • আমেরিকান টেলিভিশন নেটওয়ার্ক, বিবিসি আমেরিকা
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ব্লগ, টেক ক্রাঞ্চ
  • জনপ্রিয় শিল্পি, কেটি পেরি’র ওয়েবসাইট
  • স্টার ওয়ারস এর অফিশিয়াল ব্লগ
  • মিউজিক লেবেল, সনি মিউজিক
  • দ্যা ওয়াল্ট ডিজনি কোম্পানি
  • এমটিভি নিউজ
  •  আরো অনেক

ওয়ার্ডপ্রেস কেন এত জনপ্রিয়?

ওয়ার্ডপ্রেস এর জনপ্রিয়তার পেছনে বিভিন্ন কারণ রয়েছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক, কেন ওয়ার্ডপ্রেস এত জনপ্রিয়। সম্পর্কে আমরা আরো ধারণা পেতে সম্পূর্ণ ব্লকটি পড়ুনl

ফ্রি ও ওপেন সোর্স সফটওয়্যার:

এর জনপ্রিয়তার কারণের মূলেই রয়েছে এটির সহজলভ্যতা।

ফ্রি সফটওয়্যার হওয়ায় যেকেউ বিনামূল্যে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারে।

অন্যসব ওয়েবসাইট তৈরীর প্ল্যাটফর্ম মোটা অংকের টাকা দাবি করলেও সুলভ মূল্যে হোস্টিং ও ডোমেইন কিনে ওয়ার্ডপ্রেস এর সাহায্যে খুব সহজেই অল্প খরচে একটি ওয়েবসাইট তৈরী সম্ভব।

এজন্য আপনাদের অল্প খরচে যেভাবে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন আপনাকে এই সম্পর্কে ধারণা দিতে আগ্রহীl

ব্যবহারে সুবিধা:

জুমলা, ড্রুপাল, ইত্যাদির মত অনেক সিএমএস প্ল্যাটফর্ম থাকলেও এদের মধ্যে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করাই সবচেয়ে সহজ।

ওয়েবসাইট ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কে কোনো পূর্বধারণা ছাড়াই যেকেউ সহজেই ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে একটি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারবে।

ব্লগ লেখা হোক কিংবা পেজ তৈরী, সকল কাজই ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে যেকেউ করতে পারে। এটা যে কেউ করতে পারে এটা সবাই পারবেl

থিম:

এর প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে এর ডিজাইন। আর ওয়ার্ডপ্রেস চালিত ওয়েবসাইট ডিজাইন নির্ভর করে এর থিম এর উপর।

ওয়ার্ডপ্রেস এর ডিরেক্টরিতে রয়েছে অসংখ্য ফ্রি থিম যা ব্যবহার করে আপনি যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারেন।

ফ্রি থিম এর পাশাপাশি থিমফরেস্ট এর মতো মার্কেটপ্লেসে অনেক পেইড থিমস ও রয়েছে ওয়ার্ডপ্রেস এর জন্য।

এ সকল ব্যাবহার করেন আপনি সহজেই আপনার ওয়েবসাইটটি সাজিয়ে নিতে পারেনl

 

প্লাগিন:

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করলে বেসিক সব ফিচার এর সাথেই পাওয়া যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস এর ফাংশনালিটি উল্লেখযোগ্য হারে  বা উন্নত করতে চাইলে ব্যবহার করতে হয় ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন। এগুলোকে অ্যাপ এর সাথে তুলনা করা যেতে পারে।

মোবাইলে যেমন বিভিন্ন অ্যাপ আপনাকে বিভিন্ন সুবিধা দেয়, তেমনি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিনও সাইটে বিভিন্ন ফিচার যুক্ত করে। এর মাধ্যমে l

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ব্যবহার করে যেকোনো নতুন ফিচার যুক্ত করা সম্ভব ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে। এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেসে যেকোনো সমস্যার সমাধানেও প্লাগিন ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

এছাড়াও এর দ্বারা যে কোন সমস্যার সমাধান খুব সহজেই করা যায়l

প্লাগিন

প্লাগিন:

এসইও:

এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে ওয়ার্ডপ্রেস যথেষ্ট কার্যকর৷ ওয়ার্ডপ্রেস প্রথম থেকেই সার্চ ইঞ্জিন সমূহকে প্রাধান্য দিয়ে এসইও-বান্ধব সফটওয়্যার তৈরী করে আসছে।

এর ফলে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে তৈরী ওয়েবসাইটে গুগল থেকেই অসংখ্য ভিজিটর পাওয়া সম্ভব।

এছাড়াও বিভিন্ন প্লাগিন ব্যবহার করে ওয়েবসাইটের এসইও কে উন্নত করা যায়। সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করার খুব সহজে দ্রুত এসইও সহজ ভাবে করা যায়l

সাপোর্ট:

ওয়ার্ডপ্রেস ওপেন-সোর্স সফটওয়্যার হলেও এই সফটওয়্যারকে ঘিরে  বিশাল একটি কমিনিউটি। যার ফলে ওয়ার্ডপ্রেস সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যার সমাধান বের করা বেশ সহজ।

এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেস অত্যন্ত জনপ্রিয় হওয়ায় কোনো সমস্যা দেখা দিলে ব্লগ, ইউটিউব, ইত্যাদির কল্যাণে  সময়েই সমস্যার সমাধান করা যায়।

এজন্য এর সকল চাহিদা এর পূরণ করতে আমাদেরকে যে জ্ঞান দরকার সেই জ্ঞানের সম্পর্কেই আপনারা সাপোর্ট দেবেনl

ওয়ার্ডপ্রেস শিখতে  বিষয়ের মত ইউটিউবের সাহায্য নিতে পারেন। ওয়ার্ডপ্রেস কোডেক্স থেকেও ওয়ার্ডপ্রেস, ওয়ার্ডপ্রেস থিম ও ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ডেভলপমেন্ট সম্পর্কে সকল ধারণা লাভ করা সম্ভব।

ইন্টারনেটে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে প্রচুর ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ যা পড়েও আপনি ওয়ার্ডপ্রেস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন৷

আপনি যদি শুধুমাত্র ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব ডিজাইনার হতে চান, সেক্ষেত্রে কোডিং না শিখেও ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে পারবেন।

তবে ব্যাক-এন্ড ডেভলপমেন্ট শিখতে হলে অবশ্যই পিএইচপি, এইচটিএমএল, জেকুয়্যেরি, জাভাস্ক্রিপ্ট, মাইএসকিউএল ইত্যাদি জানার প্রয়োজন হবে।

এ সকল বিষয়ে আমাদেরকে জানতে হবে এবং মানতে হবেl

 

ডিসক্লেইমারঃ

পোস্টে কিছু অ্যাফিলিয়েট লিংক থাকতে পারে যেখান থেকে আপনি প্রোডাক্ট কিনলে আমরা কিছু রেফারেল কমিশন পেতে পারি।

তবে আমরা শুধুমাত্র মানসম্পন্ন প্রোডাক্ট/সার্ভিসই রেফার করি। তা যদি হয় তাহলে আমরা বেশি বেশি করে অ্যাটা করবোl

ওয়েব এপ্লিকেশন হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস সম্পূর্ণ ফ্রি:

 

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে সাইট তৈরি করার জন্য আপনাকে ওয়েব হোস্টিং এবং ডোমেইন ছাড়া আর কোনো বাড়তি খরচ বহন করতে হবে না।

আপনি চাইলে পেইড থিম ও প্লাগইন টাকা দিয়ে কিনে ব্যবহার করতে পারেন কিংবা ফ্রি ভার্সনগুলো দিয়েও  চালিয়ে নিতে পারেন।

এটা আপনার ইচ্ছা আপনি যেভাবে কাজ করতে চান সেভাবে কাজ করতে পারেনl

সহজে কন্ট্রোল করা যায়:

 

 

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের কন্ট্রোল প্যানেল অন্যান্য CMS/কাস্টম কোডিং সাইটের কন্ট্রোল প্যানেলের চেয়ে অনেক সহজ ।

ডাশবোর্ডের মাধ্যমে পুরো ওয়েবসাইটের এক্টিভিটি দেখা যায়।

মোবাইলের মাধ্যমে একটু সময়সাপেক্ষ হলেও পিসির মাধ্যমে খুব সহজে ওয়ার্ডপ্রেসের সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

এটার মাধ্যমে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারে তাই একটা থেকে কাজ করুনl

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করা বেশি সহজ:

 

একটি কোড না লিখেও ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে প্রোফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তৈরি করা সম্ভব। কারণ ওয়ার্ডপ্রেসে র য়েছে অসংখ্য থিম ও প্লাগইন।

থিম নির্ধারণ করে দেয় আপনার ওয়েবসাইটটি দেখতে কেমন হবে এবং প্লাগইন ব্যবহার করা যায় ওয়েবসাইটের কার্যক্ষমতা বাড়ানোর জন্য।

এই দক্ষতা থেকে আমরা সহজ ভাবে ইনকাম করতে পারিl

মাইগ্রেশন সিস্টেম:

 

ওয়ার্ডপ্রেসে ওয়েবসাইট মাইগ্রেশন অনেকটাই সহজ।

যেকোনো ধরনের ঝামেলার ছাড়াই ওয়েবসাইট মাইগ্রেট করা যায়। এজন্য আমাদেরকে এ বিষয়ে জ্ঞান রাখতে হবে যে,

যদি আমরা এই কাজগুলো করি তাহলে এ ব্যাপারে আমাদের স্পষ্ট ভাবে এ সম্পর্কে জ্ঞান রাখা জরুরিl

 

শক্তিশালী সিকিউরিটি :

 

কোনো প্লাটফর্মই ১০০% সিকিউর নয়। কিন্তু ওয়ার্ডপ্রেসের শক্তিশালী  সিকিউরিটি অন্য কোনো প্লাটফর্মে পাওয়া কঠিন।

নিয়মিত সিস্টেম আপডেট করায় ব্যবহারকারীর কোনো ভুল ছাড়া ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করা সাইট হ্যাক করা দুষ্কর।

তাই এতে শক্তিশালী হওয়ার জন্য এটা যথেষ্ট তাই আপনাদেরকে এটা করা জরুরীl

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভলপার:

পরিবর্তনের সাথে সাথে ওয়ার্ডপ্রেস ডেভলপারদের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলছে।

ব্যবহারের দিক দিয়ে WordPress সাইট পরিচালনা করা তুলনামূলকভাবে সহজ হওয়ায় অনেকেই ওয়ার্ডপ্রেসের দিকে ঝুঁকে পড়েছে।

আর তাই এটার ডেভলপারদেরও চাহিদাও দিন দিন বাড়ছে। ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্টটা শিখতে একটু কঠিন হলেও এটার ফল মিষ্টি।

তাই তরুনরা স্বাভাবিকভাবেই এটার দিকে যাওয়ার চেষ্টা করতেছে। কিন্তু, WordPress Development-এ প্রােগামিং/কোডিং থাকায় অনেকেই সফল হতে পারতেছেনা।

আমি তাদেরকে বলবাে সময় নিয়ে ধয্য সহকারে সঠিকভাবে লেগে থাকলে একদিন সফলতা আসবেই আসবে।

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট আসলে তেমন কোনাে কঠিন কাজ নাহ| একবার শিখে নিতে পারলে এটার মতাে মজা আর কোথাও পাবেন না।

তাই যারা WordPress Development শিখতে গিয়ে থেমে যাচ্ছেন আমি তাদেরকে বলবাে সময় নিয়ে ধয্য সহকারে সঠিকভাবে লেগে থাকলে সফলতা অবশ্যই আসবে।

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে প্রথমেই html, css দিয়ে শুরু করে php এবং mySOL ইত্যাদি বিষয়ে জানতে হবে।

এছাড়াও এখান থেকে আপনি অবাক হবেন যে খুব একটা চমৎকার বিষয় ডেভেলপমেন্ট করে অনেক মানুষ লাখ লাখ টাকা ইনকাম করে নিতে পারছে কেউ হয়তোবা এ বিষয়ে কারো জ্ঞান নেই তারা হয়তো ভয় পেয়ে যাবে আবার কেউ আছেন এই কথা শুনেছেন কিন্তু এরপর কাজ করেন নাl

শেষ কথা:

উপলব্ধ করতে পারি যে আমরা যে বিষয়ে সম্পর্কে জানলাম ,

সে বিষয় সম্পর্কে আমাদেরকে কতটুকু জ্ঞান বেড়েছে সেটাই আপনাদের কাছে আমরা পৌঁছে দিচ্ছি  আপনারা জ্ঞান ধারণ করবেনl

এই জ্ঞান দ্বারা আপনি চাইলে অনেক উপকারিতা হবেন তার জন্যই আজকের এই ব্লকটি লেখা সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে আজকের লেখা এখানেই শেষ করলামl

সবাই ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন ধন্যবাদ সবাইকেl

10 thoughts on “ওয়ার্ডপ্রেস কি? ওয়ার্ডপ্রেস কেন এত জনপ্রিয়?”

  1. Blacksprut – это exclusive platform в скрытой сети, где секретность и анонимность доминируют. Этот resource предлагает бесконечные возможности для открытий и закупки необычных предметов, и услуг, которые противоречат conventional norms. Whether, ищете ли вы ослепительных впечатлений Blacksprut насытит самые intricate desires. blacksprut зайти через телефон

  2. NathanSpund

    Отличная криптобиржа для успешной торговли криптовалютами. Быстрые сделки и очень удобный интерфейс!
    Flashf CC

  3. Schwarzeneggerrax

    Arnold Schwarzenegger: Be Useful: Seven Tools for Life

    THE #1 NEW YORK TIMES BESTSELLER

    The seven rules to follow to realize your true purpose in life – distilled by Arnold Schwarzenegger from his own journey of ceaseless reinvention and extraordinary achievement, and available for absolutely anyone.

    The world’s greatest bodybuilder. The world’s highest-paid movie star. The leader of the world’s sixth-largest economy. That these are the same person sounds like the setup to a joke, but this is no joke. This is Arnold Schwarzenegger. And this did not happen by accident.
     
    Arnold’s stratospheric success happened as part of a process. As the result of clear vision, big thinking, hard work, direct communication, resilient problem-solving, open-minded curiosity, and a commitment to giving back. All of it guided by the one lesson Arnold’s father hammered into him above all: be useful. As Arnold conquered every realm he entered, he kept his father’s adage close to his heart.
     
    Written with his uniquely earnest, blunt, powerful voice, Be Useful takes readers on an inspirational tour through Arnold’s tool kit for a meaningful life. He shows us how to put those tools to work, in service of whatever fulfilling future we can dream up for ourselves. He brings his insights to vivid life with compelling personal stories, life-changing successes and life-threatening failures alike—some of them famous; some told here for the first time ever.
     
    Too many of us struggle to disconnect from our self-pity and connect to our purpose. At an early age, Arnold forged the mental tools to build the ladder out of the poverty and narrow-mindedness of his rural Austrian hometown, tools he used to add rung after rung from there. Now he shares that wisdom with all of us. As he puts it, no one is going to come rescue you—you only have yourself. The good news, it turns out, is that you are all you need.

    Buy e-book Arnold Schwarzenegger: Be Useful: Seven Tools for Life

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *