Story

অপ্রত্যাশিত ভালোবাসা পার্ট -৩

Written by pro_noob

রিক্সা থেকে সে আমাকে কলেজ এর সামনে নামিয়ে দিলো পুরোটা সময় একটা ঘোরের মধ্য ছিলাম আমি। ভয়ে আমার হাত পা কাপতেছিলো, পাগল টা আমার পেছনে কেন পড়লো? ওইদিন পড়াতে যাই নাই তার পর দিন ও যাই নাই নিরা আমাকে নক দিয়ে বললো পড়াতে আসিস না কেন ভাই এর পরিক্ষা।

তাই পরদিন গেলাম পড়াচ্ছি, হটাৎ নিলয় রুমে ডুকে আমার বরাবর বসলো, আমার তার দিকে তাকানোর সাহস নাই। অনেক ভয় পাই তাকে , পাওয়ারই কথা যে ছেলে একটা খুন করছে তাও নিজের বউরে তারে ভয় পাবোনা? আমাকে জিজ্ঞেস করলো তুমি আমাকে এত্ত ভয় পাও কেন? আমি উত্তর দিলাম কই ভয় পাইনা তো কে বললো ভয় পাই হাহহা। আমি ভয়ে ভয়ে বেশি কথা বলে ফেলছি। নিলয় তার ছোট ভাই এর সামনেই আমাকে অবাক করে দিয়ে বললো আমি তোমাকে খুব ভালোবাসি। আমার এই কথা শুনে অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার মতো অবস্থা তাও নিজেকে সামলিয়ে কি বলবো বুঝতেছি না, আমি বললাম থেংকইউ। এটা কি বললাম হায়রে! ছেলেটা কিছু না বলে উঠে চলে গেলো এত্ত অদ্ভুদ ব্যাবহার! এইবার আমি শিউর সে আমাকে খুন করার জন্য নেক্সট টার্গেট হিসাবে ধরছে! আমি আর কোন ভাবেই এই বাসায় আসবো না। ওইদিন বের হয়ে চলে আসার পর রাতে একটা আচেনা নাম্বার থেকে ফোন আসলো। আমি ফোন ধরে “হ্যালো” বললাম ওই পাশ থেকে বললো আমি সত্যিই তোমাকে অনেক ভালোবাসি , আর এটাও জানি তুমি আমাকে অনেক ভয় পাও,কিন্তু এতে আমার কিছু যায় আসে না আমি তোমাকে ভালোবাসতেই থাকবো। আমার আর বুঝতে বাকি রইলো না এটা কে। আমি ফোন অফ করে ফোন বন্ধ করে ফেলল্লাম। কি একটা বিপদে পরলাম এখন কিভাবে বের হবো, না আমার জীবন টা যাবে এর মধ্য।

তারপর আর পড়াতে যাই নাই ১ সপ্তাহ প্রায়। বাসা থেকে তেমন বের হতাম না। তারপর থেকে স্বাভাবিক ভাবে কলেজ যাওয়া আসা শুরু করলাম।

একদিন আমি ক্লাসে যাচ্ছি তখন দেখলাম নতুন একজন ছাত্র আসছে আমার ক্লাস এ। স্যার তাকে পরিচয় করায়ে দিতে গেলে আমি যা দেখলাম তার জন্য একদম প্রস্তুত ছিলাম না। এটা নিলয়! সে নিজের পরিচয় দিচ্ছে!

“আমি নিলয়”

“অনেক দিন একটা কারনবশত পড়া টা গ্যাপ দিতে হইছে তাই আবার নতুন করে শুরু করতেছি আমি আপনাদের মোটামোটি সিনিয়ার”

আমি মনে মনে ভাবি “আমি একটা পাগল খুনি” এটাও বল! পেছন পেছন এই পর্যন্ত চলে আসছে! পেছনে কয়েকটা মেয়ে শুনলাম আলাপ করতেছে ছেলেটা অনেক সুইট কিউট! আমি মনে মনে ভাবি তোমাদের যখন কোপাতে আসবে বুঝবা কেমন সুইট আর কিউট। নিলয় একদম পেছনে গিয়ে বসলো আমি দেখেও না দেখার ভান করলাম। আমি ক্লাস শেষ এ বাসায় চলে আসলাম যাতে ও আমাকে না দেখে। এখন কি আর করা কলেজ তো আর বাদ দিতে পারিনা!

একদিন ক্লাস প্রজেক্ট এ আমার পার্টনার পরলো নিলয়। আমি নিজের কপাল এর ওপর নিজেই বিরক্ত আমার সাথে কেন এমন হইতেছে! ওর সাথে আমার এখন বসতে হলো! সে আমার কানের সামনে এসে আস্তে আস্তে বললো আমি স্যার কে কিছু টাকা দিসি যাতে তোমাকে আমার পার্টনার দেয়। আমার এখন আসলেই বিরক্ত লাগতেছে। মাথায় আগুন ধরে গেলো সবার সামনে বলে উঠলাম কি সমস্যা? বিরক্ত করতেছেন কেন? আমার ভাল্লাগেনা আপনাকে! সবাই আমার দিকে হা করে তাকিয়ে আছে। তখন ভাবলাম এটা কি করালাম আমি এইবার আমাকে কোপাবে নিশ্চিত!আমি চুপ করে বসে আছি। ক্লাস এর শেষ এ আমি তারে বললাম “ভাইয়া সরি বাট আমার ভালোবাসায় কোন ইন্টারেস্ট নাই”। সে আমাকে বললো দেখো আমি জানি তুমি আমাকে ভালোবাসোনা কিন্তু এতে আমার কিছু যায় আসে না, এটা বলে সে চলে গেলো।

বাসায় এসে দরজা বন্ধ করে অনেকক্ষন কাদলাম। দুই দিন কলেজ জাইনাই তাই কলেজ এর স্যার এর ফোন পেয়ে পরদিন য়াবার যেতে হলো । বাধ্য হয়ে ওই খুনি ছেলেটার সাথে বসতে হইছে। ছুটির পর ক্যান্টিন এ বসে আছি, পাশের মেয়ে গুলা কেমনে তাকাইয়া আছে যেন আমি কোন এলিয়েন, আর বলাবলি করতেছে ছেলেটা ওরে লাভ করে ক্যামনে কি,ছেলেটা কত কিউট, হ্যান্ডসাম। আমি মনে মনে বললাম কিউট মাই ফুট। ছুটির পর একজন ক্লাস ম্যাট এসে আমাকে বললো স্যার তোমাকে ক্লাসে ডাকতেছে, আমি ক্লাসে গেলাম গিয়ে দেখি কেউ নাই নিলয় বসে আছে আর আমি ঢোকা মাত্রই দরজা জানালা সব বন্ধ করে দিলো। আমি কি করবো বুঝতেছিনা ভয়ে আমার কলিজা শুখাইয়ে যাচ্ছে! আজ মনে হয় আমাকে কোপাবেই…

To be continue…..

 

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments